Coming Up Sat 6:00 PM  AEST
Coming Up Live in 
Live
Bangla radio

অস্ট্রেলিয়ায় কোভিড-১৯: আপনাকে অবশ্যই যা যা জানতে হবে

Testing temperature. Source: Getty Images - kali9

এই ফ্যাক্টশিটটিতে রয়েছে কোভিড-১৯ সম্পর্কিত অবশ্যই যা জানা প্রয়োজন, এ রকম তথ্যাবলী।

নিরাপদ থাকুন। সংযুক্ত থাকুন। জীবন বাঁচান।


বিভিন্ন রাজ্যে এসবিএস-এর কোভিড-১৯ সম্পর্কিত তথ্যের জন্য দেখুন এখানে

দেখুন: https://www.sbs.com.au/language/bangla/coronavirus-updates


অস্ট্রেলিয়ায় কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন

নিরাপদ ও কার্যকর কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন যখন সহজলভ্য হবে তখনই তা সকল অস্ট্রেলিয়ানকে প্রদান করতে অস্ট্রেলিয়া সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

COVID-19 vaccine national roll-out strategy
COVID-19 vaccine national roll-out strategy
Australian Government - Department of Health

আপনি কি কোভিড-১৯ টিকাগ্রহণের জন্য উপযুক্ত? আর কোথায় আপনি অ্যাপয়েন্টমেন্টের বুকিং দিতে পারবেন? এ জন্য দেখুন: https://covid-vaccine.healthdirect.gov.au/

আপনি যদি ৪০ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সী হন, তাহলে আপনি টিকাগ্রহণের জন্য উপযুক্ততা লাভ করবেন। ১৬ থেকে ২৯ বছর বয়সী ব্যক্তিরাও টিকাগ্রহণের উপযুক্ততা লাভ করতে পারেন। আপনি টিকাগ্রহণের জন্য উপযুক্ত কিনা সেটা জানার জন্য এই ওয়েবসাইটটিতে প্রদর্শিত ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

আপনার জিপির সঙ্গেও আপনি অ্যাপয়েন্টমেন্ট বুকিং করতে পারেন এবং আপনার ভাষায় ভ্যাকসিন সম্পর্কিত তথ্যের জন্য দেখুন: https://www.health.gov.au/initiatives-and-programs/covid-19-vaccines/covid-19-vaccine-information-in-your-language

কোন ভ্যাকসিনগুলোর জন্য সুপারিশ করা হচ্ছে?

১৬ থেকে ৫৯ বছর বয়সী ব্যক্তিদের জন্য কোভিড-১৯ কোমির্নাটি (ফাইজার) ভ্যাকসিনের সুপারিশ করছে দি অস্ট্রেলিয়ান টেকনিকাল অ্যাডভাইজোরি গ্রুপ অন ইমুনাইজেশন (ATAGI)।

১৮ থেকে ৫৯ বছর বয়সী ব্যক্তিদেরকে অ্যাস্ট্রা জেনিকা ভ্যাকসিনও দেওয়া যাবে।

আপনি যদি উপযুক্ততা লাভ না করেন এবং আপনার বয়স যদি ১৮ বছর বা তার চেয়ে বেশি হয়, সেক্ষেত্রেও আপনি অনুরোধ করতে পারেন যে, আপনি যখন উপযুক্ততা লাভ করবেন তখন যেন আপনাকে অবহিত করা হয়।

অস্ট্রেলিয়ায় ১৬ বছরের কম বয়সীরা এখনও টিকাগ্রহণের জন্য উপযুক্ততা লাভ করে নি।

কোভিড-১৯ সংশ্লিষ্ট মানসিক স্বাস্থ্য-সেবা

২০২০ সালে, প্রতি ক্যালেন্ডার বছরে উপযুক্ত সমস্ত রোগীর জন্য, এমবিএস (বেটার অ্যাকসেস) এর বেটার অ্যাকসেস টু সাইকিয়াট্রিস্টস, সাইকোলজিস্টস অ্যান্ড জেনারেল প্রাকটিশনার্স এর একটি মেন্টাল হেলথ কেয়ার পরিকল্পনার অধীনে, ১০টি সাইকোলজিক্যাল থেরাপি সেশনের জন্য মেডিকেয়ার ভর্তুকি প্রদানের উদ্যোগ নেয় অস্ট্রেলিয়া সরকার।

মেন্টাল হেলথ পোর্টাল “হেড টু হেলথ” এর মাধ্যমে কোভিড-১৯ সম্পর্কিত মানসিক-স্বাস্থ্য-সহায়তা প্রদানের সুযোগ দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া সরকার। এর মাধ্যমে তথ্য ও দিক-নির্দেশনা প্রদান করা হয় করোনাভাইরাস বৈশ্বিক মহামারীর সময়টিতে এবং সেল্ফ-আইসোলেশন বা নির্জনবাসের সময়টিতে কীভাবে মানসিক স্বাস্থ্য ভালা রাখতে হয় সে বিষয়ে।

ভাষা ও সংস্কৃতির দিক দিয়ে বৈচিত্রপূর্ণ পটভূমির (CALD) জনগোষ্ঠীগুলোর মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য কাজ করে মেন্টাল হেলথ অস্ট্রেলিয়া পরিচালিত একটি প্রকল্প এমব্রেস মেন্টাল হেলথ। এর মাধ্যমে সাংস্কৃতিক বিষয়টি বিবেচনায় রেখে বিভিন্ন উপকরণ, সেবা এবং তথ্য সরবরাহ করা হয়।

আপনার ভাষায় মানসিক স্বাস্থ্য সহায়তার দরকার হলে TIS National এ কল করুন 131 450 নম্বরে কিংবা দোভাষীর জন্য ভিজিট করুন tisnational.gov.au ওয়েবসাইটে। TIS National এ ১০০টিরও বেশি ভাষায় পরিষেবা পাওয়া যায় প্রতিদিন ২৪ ঘণ্টা, একটি লোকাল টেলিফোন কলের মাধ্যমে।

অস্ট্রেলিয়ায় আপনার ভাষায় মানসিক স্বাস্থ্য-সেবা সম্পর্কিত আরও তথ্যের জন্য ভিজিট করুন: https://www.sbs.com.au/language/bangla/what-mental-health-services-in-your-language-are-available-in-australia

আর্থিক অসুবিধা (প্যানডেমিক লিভ ডিজাস্টার পেমেন্ট)

আপনি যদি আর্থিক অসুবিধা অনুভব করেন তাহলে Covid19 Money Smart দেখুন কিংবা ন্যাশনাল ডেট হেল্পলাইনে 1800 007 007 নম্বরে কল করুন।

পেইড প্যানডেমিক লিভের জন্য ফেডারাল সরকারের একটি “ডিজাস্টার পেমেন্ট” চালু রয়েছে।

যেসব কর্মীকে অবশ্যই সেল্ফ-আইসোলেশন কিংবা কোয়ারেন্টিন-এ যেতে হবে, কিংবা যে-সব কর্মী কোভিড-১৯ আক্রান্ত অন্য কারও সেবা-যত্ন করছেন এবং এসব কারণে তারা উপার্জন করতে পারছেন না, তাদের প্রতি এই পেমেন্ট প্রযোজ্য হবে।

প্রতিটি স্টেট ও টেরিটোরিতে প্যানডেমিক লিভ ডিজাস্টার পেমেন্ট বিষয়ক তথ্যের জন্য নিজের লিঙ্কগুলোতে ক্লিক করুন:

  • নিউ সাউথ ওয়েলস (NSW)
  • ভিক্টোরিয়া (Victoria)
  • কুইন্সল্যান্ড (Queensland)
  • সাউথ অস্ট্রেলিয়া (South Australia)
  • এসিটি (ACT)
  • ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া (Western Australia)
  • ট্যাসমানিয়া (Tasmania)

কোভিড-১৯ কীভাবে ছড়ায় এবং এটি কীভাবে প্রতিহত করা যাবে?

কোভিড-১৯ ব্যক্তি থেকে ব্যক্তির মাঝে নানাভাবে ছড়ায়:

  • আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে ঘনিষ্ট সংস্পর্শে, এমনকি আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ প্রকাশিত হওয়ার আগে কোভিড-১৯ বহনকারী ব্যক্তির ঘনিষ্ট সংস্পর্শে।
  • সুনিশ্চিতভাবে আক্রান্ত ব্যক্তি, যিনি হাঁচি এবং কাশি দিচ্ছেন, সে রকম ব্যক্তির ঘনিষ্ট সংস্পর্শে এলে।
  • সুনিশ্চিতভাবে আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি বা কাশি দ্বারা দূষিত কোনো বস্তু বা আসবাবের উপরিভাগ (সারফেস) স্পর্শ করলে (যেমন, দরজার হাতল কিংবা টেবিল) এবং এর পরে মুখে বা চেহারায় স্পর্শ করলে।

আপনি এটি প্রতিরোধ করতে পারবেন। আপনি যদি অসুস্থ হন তাহলে হাত পরিষ্কার রাখুন, হাঁচি-কাশির ক্ষেত্রে পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখুন এবং অন্যদের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখুন। বেশিরভাগ ভাইরাসের ক্ষেত্রে এগুলো সর্বোত্তম সুরক্ষা ব্যবস্থা। আপনার উচিত:

  • কমপক্ষে ১.৫ মিটার সোশাল ডিস্টেন্স (সামাজিক দূরত্ব/জন-দূরত্ব) বজায় রাখুন এবং প্রতি চার বর্গমিটার স্থানে এক জন অবস্থানের নিয়ম মেনে চলুন।
  • খাবার খাওয়ার আগে ও পরে এবং টয়লেটে যাওয়ার পর সাবান-পানি দিয়ে ঘন ঘন হাত ধোওয়া।
  • হাঁচি-কাশি দেওয়ার সময়ে মুখ ঢাকুন। টিস্যুর পরিবর্তে অ্যালকোহলযুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি অসুস্থ্য হন, অন্যদের সংস্পর্শে যাওয়া থেকে বিরত থাকুন। (মানুষের কাছ থেকে অন্তত ১.৫ মিটার দূরে থাকুন)।

কোভিডসেফ অ্যাপটি (COVIDSafe app) ডাউনলোড করতে অস্ট্রেলিয়ান সরকার সকল অধিবাসীর প্রতি পরামর্শ দিচ্ছে।

আপনার মাঝে লক্ষণ বা উপসর্গ দেখা দিলে পরীক্ষা করান

করোনাভাইরাসের লক্ষণগুলো মৃদু অসুস্থতা থেকে নিউমোনিয়া, এবং অনেকটা সর্দি-কাশি ও ইনফ্লুয়েঞ্জার (ফ্লু) মতোই। যেমন,

  • জ্বর
  • শ্বাসতন্ত্র-সম্পর্কিত বিভিন্ন লক্ষণ
  • *কাশি
  • *গলায় প্রদাহ
  • *ঘন ঘন শ্বাস টানা

অন্যান্য লক্ষণগুলোর অন্তর্ভুক্ত করা যায়, নাক দিয়ে পানি পড়া, মাথা ব্যথা, মাংসপেশী এবং অস্থি-সন্ধিতে ব্যথা, বমির ভাব, ডায়রিয়া, বমি, ঘ্রাণ-শক্তি হারানো, বিকৃত স্বাদ অনুভব করা, ক্ষুধামন্দা এবং ক্লান্তি অনুভব করা।

কোভিড-১৯ এর উপসর্গ পরীক্ষার জন্য কর্তৃপক্ষ একটি COVID19 Symptom Checker তৈরি করেছে। আপনি এটি অনলাইনে, বাড়িতে থেকেই ব্যবহার করতে পারবেন।

করোনাভাইরাসের কোনো সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা নেই। তবে, এর বেশির ভাগ উপসর্গের চিকিৎসা করা হয় সহায়ক মেডিকেল কেয়ার প্রদানের মাধ্যমে। ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবায়োটিকস কোনো কাজে আসে না।

এসব লক্ষণ দেখা দিলে আপনার উচিত পরীক্ষা করানো।

আপনি যদি আপনার উপসর্গগুলো নিয়ে কারও সঙ্গে কথা বলতে চান তাহলে ন্যাশনাল করোনাভাইরাস হেল্পলাইনে পরামর্শের জন্য কল করুন। এই লাইনটি সপ্তাহে সাত দিন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকে। এর নম্বর হলো: 1800 020 080

কোথায় কোথায় পরীক্ষা করানো যাবে?

প্রতিটি স্টেট ও টেরিটোরিতে টেস্টিং ক্লিনিক খুঁজে পাওয়ার জন্য নিচের লিঙ্কগুলো দেখুন:

  • নিউ সাউথ ওয়েলস (NSW)
  • ভিক্টোরিয়া (Victoria)
  • কুইন্সল্যান্ড (Queensland)
  • সাউথ অস্ট্রেলিয়া (South Australia)
  • এসিটি (ACT)
  • ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়া (Western Australia)
  • ট্যাসমানিয়া (Tasmania)
  • নর্দার্ন টেরিটোরি (Northern Territory)

আপনার যদি কোভিড-১৯ ধরা পড়ে তবে আপনি অবশ্যই সেল্ফ-আইসোলেট করবেন:

  • পাবলিক প্লেসে, যেমন, কাজে, স্কুলে, শপিং সেন্টারে, চাইল্ডকেয়ারে কিংবা ইউনিভার্সিটিতে, যাবেন না।
  • খাবার এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি নিয়ে আসার জন্য কাউকে বলুন এবং আপনার ঘরের দরোজার সামনে রাখতে বলুন।
  • বাইরের কোনো অতিথি ও সাক্ষাৎপ্রার্থীকে ঘরে আসতে দেবেন না। আপনার বাড়িতে যারা সাধারণ বসবাস করে শুধুমাত্র তারাই থাকতে পারবেন।

কাদের গুরুতর অসুস্থ্য হওয়ার বেশি ঝুঁকি রয়েছে?

সংক্রমিত হওয়া কোনো কোনো ব্যক্তি হয়তো আদৌ অসুস্থ্য হন না, কারও কারও মাঝে মৃদু লক্ষণ দেখা দেয়, যা থেকে তারা সহজেই আরোগ্য লাভ করেন। আর, অন্যরা অতি দ্রুত অত্যন্ত অসুস্থ্য হতে পারেন। অন্যান্য করোনাভাইরাসের পূর্ব-অভিজ্ঞতা থেকে দেখা যায়, গুরুতর সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে:

  • ৫০ বছর বা তার বেশি বয়সী অ্যাবোরিজিনাল এবং টরেস স্ট্রেইট আইল্যান্ডার ব্যক্তিদের যাদের এক বা একাধিক ক্রনিক মেডিকেল কন্ডিশন্স (দীর্ঘমেয়াদী রোগ) আছে।
  • ৬৫ বছর বা তারও বেশি বয়সী ব্যক্তিদের যাদের দীর্ঘমেয়াদী অসুস্থতা রয়েছে। ‘ক্রনিক মেডিকেল কন্ডিশন্স’-এর সংজ্ঞায় আরও পরিবর্তন আনা হবে আরও প্রমাণাদি হাতে আসার পর।
  • ৭০ বছর বা তারও বেশি বয়সী ব্যক্তিরা।
  • যে-সব লোকের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা (ইমিউন সিস্টেম) দুর্বল।

আমি কি মাস্ক পরিধান করবো?

অস্ট্রেলিয়ার কোনো কোনো স্টেট ও টেরিটোরি মাস্ক ব্যবহার করার পরামর্শ দিচ্ছে কিংবা শর্ত রেখেছে।

আপনার স্টেট কিংবা টেরিটোরির পরিস্থিতি পরিবর্তিত হলে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ পরিবর্তন করা হতে পারে। আপনার স্থানীয় এলাকার জন্য প্রযোজ্য পরামর্শগুলো সম্পর্কে হালনাগাদ খবর রাখাটা জরুরি।

মাস্ক পরিধান বিষয়ক সর্বশেষ পরামর্শের জন্য আপনার স্থানীয় সরকারের আপডেটগুলো অনুসরণ করুন:

মাস্ক পরিধানের সময়ে তা যথাযথভাবে পরিধান করাটা গুরুত্বপূর্ণ:

  • এটি পরিধান করার কিংবা খুলে রাখার সময়ে আপনার হাত ধুয়ে নিন কিংবা জীবাণুমুক্ত করুন।
  • মাস্ক যেন আপনার নাক এবং মুখ ঢেকে রাখে এবং আপনার থুতনির নিচে, নাকের বাঁশির উপরে এবং আপনার চেহারার প্রান্তগুলোতে আঁটসাঁটভাবে লেগে থাকে, সেটি নিশ্চিত করুন।
  • মাস্ক পরিধান করার কিংবা খুলে রাখার সময়ে এর সামনের অংশে স্পর্শ করবেন না।
  • মাস্ক গলায় কিংবা নাকের নিচে ঝুলিয়ে রাখবেন না।
  • যে-সব মাস্ক একবার ব্যবহার-করার উদ্দেশ্যে তৈরি, সেগুলো পুনরায় ব্যবহার করবেন না। পুনঃব্যবহারযোগ্য মাস্কগুলো ব্যবহারের পর ধুয়ে শুকিয়ে নিন এবং একটি পরিষ্কার ও শুষ্ক স্থানে সংরক্ষণ করুন।

অস্ট্রেলিয়ায় আগমন, অস্ট্রেলিয়ার অভ্যন্তরে কিংবা বাইরে ভ্রমণ

স্টেট ও টেরিটোরিগুলো তাদের রাজ্যের সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া-সহ তাদের নিজস্ব নিষেধাজ্ঞাগুলো প্রয়োগ করতে পারবে।

বাধ্যতামূলক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ

স্টেট এবং টেরিটোরিগুলোকে কন্টাক্ট ট্রেসিংয়ে সহায়তা করতে ১ অক্টোবর ২০২০ থেকে ডমেস্টিক ফ্লাইটগুলোতে বাধ্যতামূলকভাবে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হচ্ছে। যেমন, নাম, ইমেইল অ্যাড্রেস, একটি মোবাইল কন্টাক্ট নম্বর এবং বসবাস করা রাজ্যের নাম।

পাবলিক ট্রান্সপোর্ট বিষয়ক জাতীয় নীতিমালা

পাবলিক ট্রান্সপোর্ট বা গণ-পরিবহন সেবাগুলো বিভিন্ন স্টেট ও টেরিটোরির দায়িত্ব। গণ-পরিবহন নেটওয়ার্কগুলোর কর্মী এবং যাত্রীদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ন্যাশনাল কেবিনেট ধারাবাহিকভাবে নীতিমালা অনুমোদন করছে। যেমন, অসুস্থ বোধ করলে ভ্রমণ না করা, চালক এবং অন্যান্য যাত্রীদের সঙ্গে দৈহিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং নগদ অর্থের লেনদেন পরিহার করা।

ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাসমূহ

আন্তর্জাতিক ফ্লাইটগুলোর জন্য বিভিন্ন সাময়িক ব্যবস্থা রয়েছে; যেগুলো সরকার নিয়মিত পর্যালোচনা করে।

এর ফলে আপনার অস্ট্রেলিয়ায় আসার ফ্লাইটের উপর প্রভাব পড়তে পারে। এসব তথ্য ঘন ঘন পরিবর্তিত হচ্ছে।

আরও তথ্যের জন্য Smart Traveller এর সর্বশেষ আপডেট দেখুন।

কোয়ারেন্টিন এবং টেস্টিংয়ের শর্তগুলো তদারক ও বাস্তবায়ন করছে স্টেট ও টেরিটোরি সরকারগুলো:

আপনি যদি বিদেশ ভ্রমণ করতে চান, সেক্ষেত্রে আপনাকে ভ্রমণের জন্য অব্যাহতি চেয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে, যদি নিম্ন-লিখিত বিষয়গুলোর কোনো একটি আপনার জন্য প্রযোজ্য হয়:

  • কোভিড-১৯ প্রাদূর্ভাবের প্রতিক্রিয়ার অংশ হিসেবে যদি আপনাকে ভ্রমণ করতে হয়; যেমন, সাহায্যের জন্য।
  • সঙ্কটপূর্ণ শিল্প ও ব্যবসা কাজে যদি প্রয়োজন হয় (আমদানি-রপ্তানি ব্যবসা-সহ)।
  • অস্ট্রেলিয়ায় বিদ্যমান নেই এ রকম অত্যাবশ্যক চিকিৎসা-সেবা লাভের জন্য যদি ভ্রমণ করতে হয়।
  • জরুরি এবং অপরিহার্য ব্যক্তিগত কারণে।
  • কমপ্যাশনেট (শোক প্রকাশ, সান্ত্বনা প্রদান ইত্যাদি) কিংবা মানবিক কারণে।
  • জাতীয় স্বার্থে যদি ভ্রমণ করতে হয়।

অস্ট্রেলিয়া ছেড়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে আরও শর্ত সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন। 


সরকারি তথ্য


অস্ট্রেলিয়ার জনগণকে অবশ্যই পরস্পরের মাঝে কমপক্ষে ১.৫ মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। জন-সমাগমের সীমা সম্পর্কে জানতে আপনার রাজ্যের নিষেধাজ্ঞাগুলো দেখুন।

আপনার মাঝে যদি সর্দি-কাশির (কোল্ড কিংবা ফ্লু) লক্ষণ দেখা দেয়, তাহলে ঘরে অবস্থান করুন এবং আপনার ডাক্তারকে কল করে কিংবা করোনাভাইরাস হেলথ ইনফরমেশন হটলাইন, 1800 020 080 নম্বরে কল করে টেস্টের ব্যবস্থা করুন।

৬৩ টি ভাষায় এ বিষয়ক সংবাদ ও তথ্য পেতে ভিজিট করুন: www.sbs.com.au/coronavirus

Please check the relevant guidelines for your state or territory: NSW, VictoriaQueenslandWestern AustraliaSouth AustraliaNorthern TerritoryACTTasmania

Follow SBS Bangla on FACEBOOK.