Coming Up Sat 6:00 PM  AEST
Coming Up Live in 
Live
Bangla radio

ইউএস ক্যাপিটল বিল্ডিংয়ে ঢুকে ট্রাম্প সমর্থকদের উচ্ছৃঙ্খলতা, স্কট মরিসনসহ বিশ্ব নেতাদের নিন্দা

A protester hangs from the balcony in the US Senate Chamber. Source: Getty Images

অস্ট্রেলিয়ান রাজনীতিবিদ এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশের নেতারা যুক্তরাষ্ট্রের শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করার প্রচেষ্টার নিন্দা করেছেন।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এবং যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনসহ বিশ্ব নেতারা ইউএস ক্যাপিটল বিল্ডিঙয়ে ঢুকে উচ্ছৃঙ্খলতার ঘটনাটিকে "অসম্মানজনক" এবং "পীড়াদায়ক" বলে বর্ণনা করেছেন।  

ইউএস প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা আজ ইউএস কংগ্রেস বিল্ডিংয়ে নিয়ম ভেঙে ঢুকে পড়ে এবং শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এবং পুলিশের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।  

LIVE: Donald Trump supporters bring US Capitol building under siege

এসময় নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ী ঘোষণা করতে কংগ্রেসে বৈঠক চলছিল।  

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এই টুইট বার্তায় এই ঘটনার দৃশ্য দেখে "অত্যন্ত পীড়াদায়ক" এবং "সহিংস কাজ" বলে নিন্দা করেন।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এই ঘটনাকে "অসম্মানজনক" বলে বর্ণনা করেছেন এবং নির্বাচনের ফলাফলকে সম্মান জানানোর আহবান জানিয়েছেন। 

নিউজিল্যান্ড প্রাইম মিনিস্টার জাসিনডা আর্ডেন বলেন মানুষের ভোটাধিকার প্রয়োগ "উচ্ছৃঙ্খল ব্যক্তিদের দ্বারা বাধাগ্রস্ত হতে পারে না।"
তিনি টুইট করে বলেন,"যা হচ্ছে তা ঠিক নয়।"

এর আগে মিঃ ট্রাম্প তার সমর্থকদের উদ্দেশ্যে মিঃ বাইডেনের বিজয়কে বৈধতা দেয়ার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের আহবান জানান। ধারনা করা হচ্ছে এই ঘটনা তারই প্রতিফলন। তবে অবশ্য তিনি পরে টুইট বার্তায় তার সমর্থকদের ফিরে যেতে বলেন। 

Police with guns drawn watch as protesters try to break into the House Chamber at the U.S. Capitol building.
Police with guns drawn watch as protesters try to break into the House Chamber at the U.S. Capitol building.
AP

সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ এই ঘটনাকে "পীড়াদায়ক" এবং হৃদয়বিদারক বলে বর্ণনা করেছে। 

এদিকে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেন, "আমাদের গণতন্ত্র এক নজীরবিহীন লাঞ্ছনার শিকার।" 

Protestors enter the Capitol building during a joint session of Congress in Washington, DC.
Protestors enter the US Capitol building during a joint session of Congress.
Chris Kleponis/Sipa USA

স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টার্জন বলেন এই ঘটনা "অত্যন্ত ভীতিকর" এবং লজ্জাজনক।  

ন্যাটো সেক্রেটারি জেনারেল জেন্স স্টলটেনবারগ বলেন, "নির্বাচনের ফলাফলকে সম্মান জানাতে হবে।" 

অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল এবং কেভিন রাডও এই ঘটনার নিন্দা করেছেন। 

এছাড়া অস্ট্রেলিয়ার বিরোধী দলনেতা এন্থোনি আলবানিজি, জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাসও এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন। 

এদিকে বিশৃঙ্খলার মধ্যেই একজন নারী গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন, এখনো পর্যন্ত ওই নারীর বিস্তারিত তথ্য জানা যায় নি। 

আরও পড়ুনঃ