অস্ট্রেলিয়ার বিতর্কিত কন্টাক্ট ট্রেসিং অ্যাপ কোভিডসেফ কী?

কোভিড-১৯ এ আক্রান্তদেরকে ও তাদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদেরকে শনাক্ত করতে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন চালু করেছে অস্ট্রেলিয়া।

Health Minister Greg Hunt at the press conference to launch the new app

Health Minister Greg Hunt at the press conference to launch the new app Source: AAP

ফেডারাল সরকার রবিবার একটি করেছে। তারা আশা করছে যে, এর মাধ্যমে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত ব্যক্তি ও তাদের সংস্পর্শে আসা অন্যান্য ব্যক্তিদেরকে শনাক্ত করা যাবে।

সিংগাপুরের ট্রেসটুগেদার সফটওয়্যারের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে কোভিডসেফ অ্যাপটি। ফোন সেটগুলোর ব্লুটুথ ব্যবহার করে ডাটা সংগ্রহ করার কারণে এটাকে বলা হচ্ছে ‘ব্লুটুথ হ্যান্ডশেক’।

তবে, এভাবে সংগৃহীত তথ্য-উপাত্ত নিয়ে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে।

Advertisement

এই অ্যাপটি কী এবং এটি কেন ব্যবহার করা হচ্ছে?

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তির সংস্পর্শে যদি কেউ এসে থাকেন তাহলে এই অ্যাপটির মাধ্যমে সেই ব্যক্তিকে শনাক্ত করা যাবে এবং এ তথ্য সংশ্লিষ্ট স্বাস্থকর্মীদের কাছেও পৌঁছানো যাবে। শর্ত হচ্ছে, আক্রান্ত ব্যক্তি এবং সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি, উভয়ের মোবাইল ফোন সেটেই এই অ্যাপটি চালু থাকতে হবে এবং ব্লুটুথ অন থাকতে হবে।

তারা যদি ১.৫ মিটারের মধ্যে অবস্থান করেন এবং অন্তত ১৫ মিনিট অবস্থান করেন তাহলে এই কন্টাক্ট রেকর্ড হয়ে যাবে।

The COVIDSafe app has been labelled a "dud" by Labor.
The COVIDSafe app has been labelled a "dud" by Labor. Source: AAP


স্বাস্থ্য মন্ত্রী গ্রেগ হান্ট বলেন,

“কমিউনিটিতে যেসব কেস হয়তো বা শনাক্ত হয় নি, সেগুলো খুঁজে বের করা ও তাদেরকে সহায়তা করার জন্য এটি। মানুষকে আগেভাগেই চিকিৎসা করা, রোগ-নির্ণয় করা এবং এটা নিশ্চিত করা যে, আমাদের ডাক্তার, নার্স, আমাদের স্বাস্থ্য-কর্মীরা, পরিবার ও বন্ধু-বান্ধব সুরক্ষিত।”

এই অ্যাপটির মাধ্যমে যেসব তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হয় সেগুলো হচ্ছে, এনক্রিপ্টেড ইউজার আইডি, কন্টাক্টের দিন-ক্ষণ এবং অপর কোভিডসেফ ব্যবহারকারীর ব্লুটুথের শক্তি, যার মাধ্যমে সে সংস্পর্শে এসেছে।

ব্যাপকভাবে পরীক্ষা করা এবং সরকারের এই কন্টাক্ট ট্রেসিং অ্যাপটি ব্যবহারের মাধ্যমে কোভিড-১৯ সংক্রমণের পরিস্থিতি অধিকতর নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে এবং এভাবে অস্ট্রেলিয়ার শাটডাউন শিথিল করা যাবে।

এই অ্যাপটি ডাউনলোড করা বাধ্যতামূলক নয়; বরং, নিজের ইচ্ছাধীন। তবে, ফেডারাল সরকার চাচ্ছে, অন্তত ৪০ শতাংশ অস্ট্রেলিয়ান এটি ডাউনলোড ও নিবন্ধন করুক। তাহলে, ‘ইন্ডাস্ট্রিয়াল স্কেলে’ এর সুফল পাবে কর্তৃপক্ষ।

চিফ মেডিকেল অফিসার ব্রেন্ডান মারফি বলেন, এই অ্যাপটি মানুষ ‘ভালভাবে গ্রহণ করবে’ বলে তিনি ‘অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী’ ছিলেন।

কন্টাক্ট ট্রেসিং প্রক্রিয়ায় এর সুফল সম্পর্কে তিনি বলেন,

“এটি অনেক শ্রমসাধ্য প্রক্রিয়া হতে পারে।”

আমি এটি কীভাবে ব্যবহার করবো?

প্রথমত, আপনাকে এটি ডাউনলোড করতে হবে। অ্যাপল ব্যবহারকারীরা অ্যাপ স্টোর এবং অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা গুগল প্লে ভিজিট করতে পারেন।

ডাউনলোড করার পর ব্যবহারকারীকে চারটি প্রশ্ন করা হবে:

  • ফোন নম্বর
  • নাম (মিস্টার হান্ট বলেন, ব্যক্তিগত গোপনীয়তা নিয়ে যারা চিন্তিত, তারা চাইলে ফেক বা অন্য কোনো নাম ব্যবহার করতে পারবেন; তবে আসল নাম ব্যবহার করাটাই শ্রেয়)
  • বয়স-সীমা (এর মাধ্যমে স্বাস্থ্য-কর্মীরা কন্টাক্ট ট্রেসিংয়ে অগ্রাধিকার দিতে পারবে)
  • পোস্ট কোড (সংশ্লিষ্ট স্টেট এবং টেরিটোরিগুলোর স্বাস্থ্য-কর্মীরা যেন পদক্ষেপ নিতে পারে)
কোভিডসেফ অ্যাপটি কার্যকর করার জন্য এটি ওপেন করতে হবে এবং ব্লুটুথ সুইচ অন রাখতে হবে।

এই অ্যাপটি ব্যবহার করার জন্য ফোন সেটটি আনলক করতে হবে কি না তা নিয়ে প্রাথমিকভাবে সংশয় ছিল। তবে, মিস্টার হান্ট বিষয়টি পরিষ্কার করেন যে, বিষয়টি এ রকম নয়।

তিনি বলেন, কোনো অবস্থাতেই লোকেশন ডাটা বা অবস্থান-স্থল বিষয়ক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হবে না। কোনো ডিভাইসে সংরক্ষিত ডাটা ২১ দিন পর ডিলিট বা মুছে ফেলা হবে। আর, কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারী যখন শেষ হয়ে যাবে তখন সংরক্ষিত সমস্ত ডাটা মুছে ফেলা হবে।



আমার ব্যক্তিগত তথ্য ও গোপনীয়তা কি এই অ্যাপের জন্য ঝুঁকিগ্রস্ত হবে?

সরকার বলছে এই অ্যাপটি নিরাপদ এবং ব্যক্তিগত তথ্যাবলী ব্যবহার করা হবে Privacy Act 1988 এবং Biosecurity Determination 2020 অনুসারে।

এ সপ্তাহে এবিসি-র একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, কোভিডসেফ অ্যাপের ডাটা স্টোরেজ-এর চুক্তি প্রদান করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র-ভিত্তিক রিটেইল জায়ান্ট অ্যামাজনকে। রিপোর্টটিতে আরও আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে যে, অস্ট্রেলিয়ার ডাটা কোনো তৃতীয় পক্ষকে দেওয়া হবে কি না।

রবিবার মিস্টার হান্ট এসব উদ্বেগের কোনো কোনোটির জবাব দেন। তিনি বলেন, ডাটা শুধুমাত্র অস্ট্রেলিয়াতেই সংরক্ষণ করা হবে। আর, সে-সব ডাটা শুধুমাত্র স্টেট ও টেরিটোরিগুলোর স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোকেই ব্যবহার করতে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন,

“এ সবের লঙ্ঘন করা হলে কারাদণ্ডও হতে পারে।”



এই অ্যাপের মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্য পুলিশকে প্রদান করা হবে না, বলেছেন মিস্টার হান্ট। তিনি বলেন, এই অ্যাপের মাধ্যমে যদি জানা যায় যে, বেশ কয়েকজন মানুষ কোনো স্থানে একত্রিত হয়েছে এবং সোশাল ডিস্টেন্সিং নিষেধাজ্ঞাগুলো মানছে না, সেক্ষেত্রেও তা পুলিশকে জানানো হবে না।

“কেউ কেউ যেভাবে চান, সেভাবে হয়তো হবে না। তবে, কেবিনেটে আমরা সমস্ত সম্ভাব্যতাই বিবেচনা করেছি এবং এর মাধ্যমে একটি কাজ সম্পাদন করতেই একমত হয়েছি।”

এর কী রকম প্রতিক্রিয়া হয়েছে?

এই অ্যাপটির প্রাথমিকভাবে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

বিজনেস কাউন্সিল অফ অস্ট্রেলিয়া বলেছে, মানুষকে নিরাপদে রাখার জন্য এই অ্যাপটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে আর কমিউনিটিতে আত্মবিশ্বাসও তৈরি করবে এটি।

প্রতিষ্ঠানটির সিইও জেনিফার ওয়েস্টাকট বলেন,

“যতো বেশি সংখ্যক অস্ট্রেলিয়ান এই অ্যাপটি ডাউনলোড করবেন, আমরা ততো বেশি নিরাপদ হবো এবং ততো দ্রুত আমরা নিষেধাজ্ঞাগুলো তুলে ফেলা শুরু করতে পারবো। আমি এই অ্যাপটি ডাউনলোড করবো এবং আমি সকল অস্ট্রেলিয়ানকেও এটি ডাউনলোড করতে বলছি।”



অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল অস্ট্রেলিয়া বলেছে, তারা সরকারের কাছ থেকে আরও নিরাপত্তার নিশ্চয়তা চাচ্ছে।

এর ক্যাম্পেইনার টিম ও’কনর বলেন,

“সরকার আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছে যে, সংগৃহীত ডাটা হেলথ অথরিটি ছাড়া অন্য কোনো এজেন্সির সঙ্গে শেয়ার করা হবে না। আর, এটা একটি সানসেট ক্লজ দ্বারা সুরক্ষিত হবে যে, সংক্রমণের ঝুঁকি কমা মাত্রই এসব ডাটা বিনষ্ট করা হবে।”

এর আগে রবিবার লেবার দলের হোম অ্যাফেয়ার্স বিষয়ক মুখপাত্রী ক্রিস্টিনা কেনেলি বলেছিলেন, এই অ্যাপটি ‘অনেক বড় উপকরণ’ হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে। তবে, কতো জন এটি ডাউনলোড করবেন তা নিয়ে নিশ্চিত ছিলেন না তিনি।

এবিসি-কে তিনি বলেন,

“অস্ট্রেলিয়ানরা শুধুমাত্র তখনই এই অ্যাপটি ডাউনলোড করবে যখন তারা আশ্বস্ত হবে যে, তাদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সুরক্ষিত থাকবে।

এই অ্যাপটি সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য দেখুন

alc covid domestic violence bangla
Source: SBS


অস্ট্রেলিয়ানদেরকে অবশ্যই পরস্পরের মাঝে কমপক্ষে ১.৫ মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং পরিবারের ও ঘরোয়া সদস্য ছাড়া অন্যদের সঙ্গে হলে দু’জনের বেশি একত্রিত হওয়া যাবে না।

আপনি যদি মনে করেন যে, আপনি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, তাহলে আপনার ডাক্তারকে কল করুন। ডাক্তারের কাছে যাবেন না। আপনি ন্যাশনাল করোনাভাইরাস হেলথ ইনফরমেশন হটলাইনেও কল করতে পারেন এই নম্বরে: 1800 020 080

alc covid shopping bangla
Source: SBS


আপনার যদি শ্বাস-কষ্ট কিংবা মেডিকেল ইমার্জেন্সি দেখা দেয়, তাহলে 000 নম্বরে কল করুন।

আপনার ভাষায় কোভিড-১৯ এর সর্বশেষ আপডেট জানাতে এসবিএস প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ৬৩ টি ভাষায় এ বিষয়ক সংবাদ ও তথ্য পাবেন। ভিজিট করুন: .

alc-covid-gatherings-bangla
Source: SBS


বাংলায় করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) বিষয়ক আমাদের সর্বশেষ আপডেটের জন্য ভিজিট করুন:

alc covid ramadan bangla
Source: SBS


Follow SBS Bangla on .






Share
Published 27 April 2020 at 7:00pm
By Evan Young
Presented by Sikder Taher Ahmad